নতুন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন দেখবে ক্রিকেটবিশ্ব

বার্মিংহ্যাম: বৃহস্পতিবার এজবাসটনে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে আট উইকেটে হারিয়ে ২০১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে গেল ইংল্যান্ড। রবিবার লর্ডসে নামবে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। অর্থাৎ নতুন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন পাবে ক্রিকেটবিশ্ব। গতবার উঠলেও বিশ্বজয়ের স্বাদ পায়নি কিউয়িরা। ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে ট্রফি জয়ের স্বাদ অপূর্ণ থেকে ছিল কেন উইলিয়ামসনদের। টানা দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ ফাইনালে ওঠে নিউজিল্যান্ড। আর এদিন দ্বিতীয় সেমিফাইনালে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ১৯৯২-এর পর বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল ইংল্যান্ড।

২৭ বছর পর বিশ্বকাপ ফাইনালে ইংল্যান্ড

বিশেষ প্রতিবেদনঃ অস্ট্রেলিয়াকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ২৭ বছর পর বিশ্বকাপ ফাইনালে ইংল্যান্ড। ফাইনালে ইংল্যান্ডের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড। ম্যাচের উইনিং রান এল মর্গ্যানের ব্যাটে। ২২৪ রান তাড়া করতে নেমে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ৩৩ তম ওভারেই ম্যাচ জিতে নিল ইংল্যান্ড। ওপেনিংয়ে রয়-বেয়ারস্টোর শতরান পার্টনারশিপে ভর করে সহজেই সেমিফাইনাল জিতল ইংরেজরা। রান তাড়া করতে নেমে ৬৫ বলে ৮৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন জেসন রয়। বেয়ারস্টোর সংগ্রহ ৪৩ বলে ৩৪ রান। তিন নম্বরে নেমে ৪৯ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়লেন জো রুট। অধিনায়ক ইয়ন মগ্যান ৪৫ রানে অপরাজিত থাকেন। ম্যাচের সেরা হয়েছেন ক্রিস ওকস। ৮ ওভারে ২০ রান দিয়ে ৩ উইকেট পান ওকস। রবিবার লর্ডসে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ফাইনাল খেলবে ইংরেজরা। শেষবার ১৯৯২ বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলেছিল ইংল্যান্ড। সেবার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অবশ্য ফাইনালে হেরেছিল তারা। এবার বিশ্বকাপের ফাইনাল জিতে মর্গ্যানরা ঘরের মাঠে ট্রফি জিততে পারে কিনা, সেটাই এখন দেখার। টস জিতে এদিন প্রথমে ব্যাটিং নেয় অজিরা। সিদ্ধান্ত অবশ্য বুমেরাং হয়ে ফিরল। স্কোরবোর্ডে বড় রান তুলতে পারল না অস্ট্রেলিয়া। নির্ধারিত ৫০ ওভারের এক ওভার বাকি থাকতেই ২২৩ রানে অল-আউট অস্ট্রেলিয়া। স্মিথের ৮৫ ও অ্যালেক্স ক্যারির ৪৬ রানের ইনিংসে ভর করে স্কোরবোর্ডে লড়াই করার মতো রান তুলেছে অজিরা। ইংল্যান্ডের বোলাররা এদিন দারুণ বল করলেন। তিনটি করে উইকেট নিলেন ওকস ও রশিদ। দুটি উইকেট জোফরা আর্চারের। এক উইকেট পেয়েছেন মার্ক উড। ম্যাচ জিততে ইংল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল ২২৪ রান।

ধোনি-জাদেজার লড়াইয়ের প্রশংসায় মাস্টার ব্লাস্টার
বুধবার ম্যাঞ্চেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ব্যাট হাতে মহেন্দ্র সিং ধোনি ও রবীন্দ্র জাদেজা লড়াইয়ের প্রশংসা করেছেন সচিন তেন্ডুলকর। একই সঙ্গে নিউজিল্যান্ডের দেওয়া ২৪০ রানের লক্ষ্যে ভারত পার করতে না পারায় হতাশও হয়েছেন মাস্টার ব্লাস্টার।কিউই-দের বিরুদ্ধে ম্যাচ হারের জন্য ভারতীয় ব্যাটিংয়ের টপ অর্ডারের ব্যর্থতাকেই দায়ী করেছেন সচিন। তাঁর কথায়, রোহিত শর্মা এবং বিরাট কোহলি সব ম্যাচেই যে সফল হবেন, তার তো কোনও মানে নেই। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ জিততে তাঁরা ছাড়া দলের অন্য খেলোয়াড়দেরও দায়িত্ব নিতে হবে বলে জানিয়েছেন মাস্টার ব্লাস্টার। সচিনের মতে, বুধবার ৯২ রানে ৬ উইকেট পড়ে যাওয়ার সময়ই ম্যাচের ভবিষ্যত নির্ধারণ হয়ে গিয়েছিল। মহেন্দ্র সিং ধোনি (৫০) ও রবীন্দ্র জাদেজার (৭৭) মধ্যে ওই অসাধারণ পার্টনারশিপ না হলে ভারত এই ম্য়াচ আরও শোচনীয় ভাবে হারত বলেই মনে করেন লিটিল মাস্টার। আর এখানেই ধোনি ও জাদেজার লড়াই স্বার্থক বলে জানিয়েছেন সচিন। তাঁদের হার না মানা লড়াইয়ের প্রশংসায় টুইটও করেছেন তিনি।

ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী ক্রিকেট অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে ক্রিকেট থেকে অবসর না নেওয়ার অনুরোধ জানালেন ভারতরত্ন জয়ী সুর-সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর। ‘অবসর নেবেন না প্লিজ’, ভক্তদের এমন অসংখ্য বার্তায় ভরে গিয়েছে ধোনি সোশ্যাল অ্যাকাউন্টের ইন বক্স।

নো-বলে রান আউট ছিলেন ধোনি!

ম্যাঞ্চেস্টার:  রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে ১৮ রানে হেরে স্বপ্নভঙ্গের বেদনা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হল ১৩০ কোটির দেশকে। কিন্তু ২৪০ রান তাড়া করতে নেমে ৯২ রানে ৬ উইকেট খুঁইয়েও ধোনি-জাদেজার মহাকাব্যিক লড়াই বহুদিন মনে রাখবেন দেশের ক্রিকেট অনুরাগীরা। ৪৮.২ ওভার পর্যন্ত ধোনি যতক্ষণ ক্রিজে ছিলেন, আবর্তিত হচ্ছিল ভারতের আশা-নিরাশা। পরের বলে স্কোয়্যার লেগ থেকে গাপ্তিলের স্বপ্নের থ্রো উইকেট ভাঙার সাথে সাথেই ভেঙে যায় তিল-তিল করে গড়ে তোলা বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের তৃতীয়বার বিশ্বজয়ের স্বপ্ন। রান আউট হয়ে ধোনি যখন প্যাভিলিয়নমুখো, ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে তখন নিস্তব্ধতা। কিন্তু ম্যাচের পর সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিও ঘিরে দানা বেঁধেছে তীব্র বিতর্ক। যে ডেলিভারিতে ধোনি রান আউট হয়ে ফিরলেন, সেটি কি নো-বল ছিল? উঠছে প্রশ্ন।কারণ সেমিফাইনাল হারের পর সোশাল মিডিয়ায় এক অনুরাগীর পোস্ট করা একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে ৪৯ তম ওভারে লকি ফার্গুসনের তৃতীয় ডেলিভারির সময় ৩০ গজ বৃত্তের বাইরে ছিলেন ছ’জন ফিল্ডার। কিন্তু তৃতীয় পাওয়ার-প্লে’তে নিয়মানুযায়ী কেবল পাঁচজন ফিল্ডার দাঁড়াতে পারেন বৃত্তের বাইরে। ইনসেটে ফিল্ডিং সংক্রান্ত একটি ভিডিও গ্রাফিক্স অন্তত জানান দিচ্ছে সেকথাই। স্বাভাবিকভাবেই ভিডিওটি ভাইরাল হতেই আম্প্যারিংয় নিয়ে  প্রশ্ন তুলে অনুরাগীরা।

বিশেষ প্রতিবেদনঃ  রোহিতের আসাধারন  খেলা ২০১৯ বিশ্বকাপে মানুষের মন কেড়ে নিয়েছে। ইতিমধ্যেই চারটি সেঞ্চুরিও করে ফেলেছেন রোহিত। মঙ্গলবার এজবাস্টনে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ১০৪ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে তাঁর ইনিংসের সৌজন্যেই ভারতের রান ৩০০ রানের গণ্ডি পেরিয়ে যায়। সেই ইনিংসেই তাঁর একটি ছক্কা গ্যালারিতে এক ফ্যানের গায়ে গিয়ে লাগে, কিন্তু ম্যাচ শেষ হতেই সেই ফ্যানের সঙ্গে দেখা করেন রোহিত শর্মা । তাঁর চোট কতটা জানতে চান রোহিত। এবং তাঁকে অটোগ্রাফ করা একটি টুপিও উপহার দেন তিনি। বিসিসিআই একটি টুইটে লেখে, ‘‘এই মহিলা রোহিতের একটি ছাক্কা লেগে আহত হয়েছিল। ভারত ওপেনার তাঁর খোঁজ নেয় এবং তাঁকে সই করে অটোগ্রাফ করা টুপিও উপহার দেন।”

কোপায় স্বপ্নভঙ্গ মেসিদের,ফাইনালে ব্রাজিল

বিশেষ প্রতিবেদনঃ গ্যাব্রিয়েল জেসাস ও রবার্তো ফার্মিনোর গোলে কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে চির প্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে ফাইনালে পৌঁছে গেল ব্রাজিল। মঙ্গলবার উত্তেজনাপূর্ণ সেমিফাইনালে মুখোমুখি হয় দুই দল। সার্জিও অ্যাগুয়েরো ও লিওনেল মেসি গোল করার সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু তাঁদের শট পোস্টে লেগে ফিরে আসে। বুধবার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে খেলবে গতবারের চ্যাম্পিয়ন চিলি ও পেরু। এই ম্যাচে বিজয়ী দলের সঙ্গে রবিবার ফাইনালে খেলবে ব্রাজিল। বহু বছর পরে কোনও বড় প্রতিযোগিতায় মুখোমুখি হল দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী। শেষ বার কোপা আমেরিকা ফাইনালে ৩-০ গোলে ব্রাজিল হারিয়েছিল আর্জেন্টিনাকে। ১২ বছর পরে সেমিফাইনালেও জয় পেল সেলেকাওরাই। জেসাস ও ফার্মিনো— ফাইনালের দুই তারকা একে অন্যকে গোলের সুযোগ তৈরি করে দিলেন। পাশাপাশি অধিনায়ক দানি অ্যালভেসও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। দেশকে বড় প্রতিযোগিতায় জেতানোর স্বপ্ন ক্রমশ ফিকে হয়ে আসছে বার্সেলোনার হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করা এলএমটেন-এর। পরের বছর আরও একটা সুযোগ পাবেন তিনি। আর্জেন্টিনাওকলম্বিয়া আয়োজন করবে কোপা আমেরিকার।দেখার, সেবার দেশকে ট্রফি এনে দিতে পারেন কি না ফুটবলের মহাতারকা।

বিরাট কোহলিদের হয়ে গলা ফাটাবেন পাকিস্তানি সমর্থকরা!

বার্মিংহ্যাম: এবার কি এজবাস্টনে রবিবাসরীয় লড়াইয়ে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিরাট কোহলিদের হয়ে গলা ফাটাবেন পাকিস্তানি সমর্থকরা? প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক নাসের হোসেনের টুইটারে ভারত-ইংল্যান্ড ম্যাচ নিয়ে পাক সমর্থকদের সামনে এই প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিলেন৷ শুনতে অবাক লাগলেও, ইংরেজদের বিরুদ্ধে বাইশ গজে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে সমর্থন করবে বলে জানান পাক ফ্যানেরা৷ বুধবার এজবাস্টনে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়ে বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে যাওয়ার আশা জিইয়ে রেখেছে ১৯৯২-এর বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা৷ বাবর আজমের অপরাজিত সেঞ্চুরিতে চলতি বিশ্বকাপে প্রথমবার হারের মুখ দেখে নিউজিল্যান্ড৷ টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ২৩৭ রান তুলেছিল নিউজিল্যান্ড ৷ গ্র্যান্ডহোমকে সঙ্গে নিয়ে কিউয়িদের লড়াইয়ের শক্তি এনে দিয়েছিলেন নিশাম৷ টিনেজার শাহিন শাহ আফ্রিদির বাঁ-হাতি পেস বোলিং কিউয়ি ব্যাটিং লাইন-আপে ধস নামায়৷ রান তাড়া করে ৪৯.১ ওভারে ৪ উইকেটে ২৪১ রান তুলে ম্যাচ জিতে নেয় পাকিস্তান৷ বৃহস্পতিবার এজবাস্টনে সরফরাজদের জয়ের পাক ফ্যানেদের কাছে ভারত-ইংল্যান্ড ম্যাচে কাদের সাপোর্ট করবে বলে টুইটারে প্রশ্ন রাখেন প্রাক্তন ইংরেজ অধিনায়ক৷ টুইটারে নাসের হোসেন লেখেন, “Question to all Pakistan fans .. England vs INDIA .. Sunday .. who you supporting?”পাকিস্তান ফ্যানেরা প্রাক্তন ইংল্যান্ড ক্যাপ্টেনকে রি-টুইট করে আহমেদ সালেম নামক এক পাক সমর্থক লেখেন, ‘Yes, ofcourse we love our neighbour’s. Ofcourse we support India.???? @MehrTarar#CWC19.রবিবার এজবাস্টনেই কোহলিদের বিরুদ্ধে ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচ খেলতে নামছে মর্গ্যানবাহিনী৷ আগের দু’টি ম্যাচে হেরে কোণঠাসা ‘ফেভারিট’ ইংল্যান্ড৷ সুতরাং ভারতের কাছে হার মানেই সেমিফাইনালে ওঠার আশা শেষ ইংরেজদের৷ শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে এই মুহূর্তে ৭ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবলে চার নম্বরে রয়েছে ইংল্যান্ড৷ সুতরাং সেমিফাইনালে যেতে হলে লিগের শেষ দু’টি ম্যাচ অর্থাৎ ভারত ও নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে জিততে হবে মর্গ্যানদের৷ নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে ৭ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে এই মুহূর্তে ৬ নম্বরে রয়েছে পাকিস্তান৷ অর্থাৎ সেমিফাইনালে ওঠার আশা এখনও জিইয়ে রয়েছে সরফরাজদের৷ লিগের শেষ দু’টি ম্যাচে পাকিস্তান জিতলে এবং শ্রীলঙ্কা ও ইংল্যান্ড লিগে তাদের বাকি ম্যাচগুলির মধ্যে একটি করে হারলে শেষ চারের ছাড়পত্র পেয়ে যাবে পাকিস্তান৷ অর্থাৎ রবিবার ম্যাঞ্চেস্টারে ভারতের কাছে ইংল্যান্ডের হার মানে সেমিফাইনালে ওঠার রাস্তা চওড়া হবে পাকিস্তানের৷ লিগে সরফরাজদের শেষ দু’টি লড়াই আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে৷

 ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে বিরাট জয় ভারতের

 ম্যাঞ্চেস্টার:  অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও মহেন্দ্র সিং ধোনির দারুণ ব্যটিং। বাকি দায়িত্বটা পালন করলো ভারতীয় বোলাররা। পাকিস্তানের পর ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের বাইশ গজে ক্যারিবিয়ানদের নাস্তানাবুদ করলো  বিরাটের ভারত। এই ম্যাচে  রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১২৫ হারিয়ে কার্যত সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে ফেলল মেন ইন ব্লু। খুব বড় অঘটন না ঘটলে টিম ইন্ডিয়ার নক-আউট এখন শুধু সময়ে অপেক্ষা। ভারতের ২৬৮ রানের জবাবে এদিন গেইল-ব্রাথওয়েট সমৃদ্ধ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটিং লাইন আপ গুটিয়ে গেল মাত্র  ১৪৩ রানে। ১২৫ রানে বিশাল জয় পেলো কোহলির ভারত। একের পর এক পরাজয়ে হতাশ গেইল শিবির।

কোহলিদের কাছে হেরে আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন পাকিস্তান কোচ! 

ত্রিপুরা পাবলিক ওপিনিয়ন:  বিশ্বকাপে বিরাট কোহলিদের কাছে হেরে গিয়ে  হতাশায়, সুইসাইড করার কথা ভেবেছিলেন পাকিস্তানের কোচ মিকি আর্থার। ভারতের কাছে পরাজয়ের পর, চারপাশ থেকে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। পাকিস্তানের এই দলের ক্রিকেটারদের খেলা ছেড়ে দেওয়ার কথাও বলেন পাক অনুরাগীরা। সেইসঙ্গে হুমকি তো রয়েছেই। যার জেরে দেশে ফেরা নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন পাক ক্রিকেটাররা। এই পরিস্থিতিতে তীব্র চাপের মুখে আত্মহত্যার কথাও ভেবেছিলেন পাকিস্তানের কোচ মিকি আর্থার। তিনি নিজে এমনটাই জানিয়েছেন। তিনি বলেন, পাক সংবাদমাধ্যম ও দেশের অনুরাগীরা যে ভাবে ক্রিকেটারদের আক্রমণ করেছেন, তাতে ওঁরা মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। ওই দিনের পর, এমনকী রাতেও ঠিক করে ক্রিকেটাররা ঘুমোতে পারছেন না। তবে, দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর পর টিম ফের আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছে বলেই দাবি করেন পাক কোচ।  লর্ডসে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৪৯ রানে হারায় পাকিস্তান।

জাপানকে ৩-১ গোলে হারিয়ে সেরা ভারতের মেয়েরা

ত্রিপুরা পাবলিক ওপিনিয়ন রিপোর্টার: 

এফআইএইচ উইমেনস হকি সিরিজ ফাইনালসে চ্যাম্পিয়ন হল ভারত৷ হিরোশিমা হকি স্টেডিয়ামে রবিবার খেতাবি লড়াইয়ে আয়োজক জাপানকে ৩-১ গোলে পরাজিত করে ভারতের মেয়েরা৷ সেমিফাইনালে চিলিকে ৪-২ গোলে হারিয়ে ভারত অলিম্পিক কোয়ালিফায়ার্সের টিকিট আগেই অর্জন করেছিল৷ এবার চ্যাম্পিয়ন হয়ে টোকিও অলিম্পিকের ছাড়পত্র আদায়ের পথে বাড়তি আত্মবিশ্বাস জোগাড় করে রাখল রানি রামপালরা৷ জাপানের বিরুদ্ধে শুরুতেই গোল করে ভারতকে এগিয়ে দেন ক্যাপ্টেন রানি৷ তবে ব্যবধান খুব বেশিক্ষণ ধরে রাখা সম্ভব হয়নি ভারতের পক্ষে৷ প্রথম কোয়ার্টারেই কানন মোরি জাপানকে সমতায় ফেরান৷ তৃতীয় ও চতুর্থ কোয়ার্টারের একেবারে শেষ মিনিটে জোড়া গোল করে ভারতের জয় নিশ্চিত করেন গুরজিৎ কউর৷

ব্রাথওয়েটের একক লড়াই বহুদিন মনে রাখবেন ক্রিকেট অনুরাগীরা

ম্যাঞ্চেস্টার: কার্লোস ব্রাথওয়েট। একটা মৃতপ্রায় ম্যাচকে নিজের ব্যাটের সঞ্জীবনী সুধা দিয়ে জাগিয়ে তোলার পরও তীরে এসে তরী ডোবালেন যে তিনিই। নিউজিল্যান্ডের কৃতিত্বকে কোনওরকম খাটো না করেও তাই বলতেই হয় ভাগ্যদেবতার নিষ্ঠুর পরিহাসে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ৫ রানের রুদ্ধশ্বাস জয় ছিনিয়ে নিল কিউয়িরা। উলটোদিকে রাজকীয় শতরান সত্ত্বেও ‘ট্র্যাজিক হিরো’ হয়েই রয়ে গেলেন ব্রাথওয়েট। ২০১৬ টি ২০ বিশ্বকাপ ফাইনালে ইডেন গার্ডেন্সে ম্যাচ জেতানো ১০ বলে ৩৪ রানের ইনিংস পাদপ্রদীপের আলোয় নিয়ে এসেছিল কার্লোস ব্রাথওয়েটকে। কিন্তু শনিবার শেষ অবধি ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছাড়লে হয়তো আক্ষরিক অর্থে বীরের সম্মান অপেক্ষা করছিল বার্বাডোজের এই অল-রাউন্ডারের জন্য। কিন্তু জয় থেকে মাত্র ৬ রান দূরে দাঁড়িয়ে নিশমের বলে লং অনে বোল্টের হাতে ধরা পড়ে গেলেন ব্রাথওয়েট। মূহুর্তে অন্ধকার ঘনিয়ে এল ক্যারিবিয়ান শিবিরে। নিজেকেই নিজে যেন বিশ্বাস করতে পারছিলেন না ব্রাথওয়েট। ম্যাচ জিতেও তখন উচ্ছ্বাসে না মেতে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানের দিকে তখন সহানুভুতির হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন ম্যাচের আরেক শতরানকারী কিউয়ি অধিনায়ক উইলিয়ামসন। ম্যাচ জেতাতে না পারলেও টেল এন্ডারদের নিয়ে ব্রাথওয়েটের একক লড়াই বহুদিন মনে রাখবেন অনুরাগীরা।

ধোনির কথা মেনে ইয়র্কার দিয়ে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ভারতীয় হিসেবে হ্যাটট্রিক তুলে নেন মহম্মদ শামি

ত্রিপুরা পাবলিক ওপিনিয়ন:  ঠিক এটাই বলেছিলেন এমএস ধোনি। যা বল করতে নেমে অক্ষরে অক্ষরে পালন করলেন মহম্মদ শামি । শেষ ওভারে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে উত্তেজক ম্যাচে তাঁর হ্যাটট্রিকেই বাজিমাত করেছে ভারত। তিনি হ্যাটট্রিক না করলে হয়তো ফল অন্যরকমও হতে পারত । একটা সময় সেই আশঙ্কাও দেখা দিয়েছিল। কিন্তু হ্যাটট্রিকের বলটা সব সময়ই খুব বেশি উত্তেজনার হয়। মহম্মদ শামির জন্য তা অন্যরকম ছিল না। কিন্তু তিনি নিশ্চিত ছিলেন হ্যাটট্রিকের বলটি তিনি ইয়র্কারই দেবেন। তেমনটাই যে বলেছিলেন এমএস ধোনি । সাদাম্পটনে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের ব্যাট থেকেও বড় রান আসেনি। যে কারনে প্রতিপক্ষকে সেই রানের মধ্যে আটকে দেওয়াটা সহজ ছিল না। আফগানিস্তান দারুণ লড়াই দিয়ে কাছাকাছিও পৌঁছে গিয়েছিল প্রথম জয়ের। শুধু বাধ সাধলেন শামি। এই বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন তনি। আর ধোনির কথা মেনে ইয়র্কার দিয়ে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ভারতীয় হিসেবে হ্যাটট্রিক তুলে নেন তিনি। এর আগে ১৯৮৭-র বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করেছিলেন চেতন শর্মা। 

 মেসির গোলে সম্মান বাঁচল আর্জেন্টিনার

ত্রিপুরা পাবলিক ওপিনিয়ন: লিওনেল মেসির পেনাল্টির সৌজন্যে প্যারাগুয়ের সঙ্গে ১-১ ড্র করে সম্মান বাঁচাল আর্জেন্টিনা।  দু’বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা আবারও কোপা আমেরিকায় সমস্যায়। ৫৭ মিনিটে গোল করেন মেসি। বেলো হরাইজন্তে’স মিনেইরাও স্টেডিয়ামে গ্রুপ বি-র এই ম্যাচের প্রথমার্ধে প্যারাগুয়ের হয়ে গোল করেন রিচার্ড স্যাঞ্চেজ। আর্জেন্টিনার ধন্যবাদ দেওয়া উচিত গোলকিপার ফ্র্যাঙ্কো আর্মানিকে। যিনি খেলার দ্বিতীয়ার্ধে পেনাল্টি না বাঁচালে ম্যাচে ২-১ লিড নিয়ে নিত প্যারাগুয়ে। এই ড্রয়ের ফলে দুই ম্যাচে আর্জেন্টিনার পয়েন্ট দাঁড়াল ১। টেবিলে সব থেকে নীচে তারাই। আর একটা খেলাই তাদের বাকি রয়েছে। তবে আশা এখনই শেষ নয়। তিন নম্বরে থাকা দুই দলই কোয়ার্টার ফাইনালের দিকে এগিয়ে থাকলেও আর্জেন্টিনা কিন্তু শেষ আটে যেতেই পারে। গ্রুপ লিগের শেষ ম্যাচে কাতারকে হারাতে পারলে। শনিবার কলম্বিয়ার কাছে হারের পরে এ দিনও কিন্তু ছন্দে দেখা যায়নি আর্জেন্টিনাকে। খেলায় উন্নতি  না করতে পারলে তাদের পক্ষে পরের রাউন্ডে যাওয়া মুশকিল।

বিরাট কোহলিকে ম্যাচ ফি-র ২৫% জরিমানা করা হল। আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচে বারবার আগ্রাসীভাবে আবেদন করার জন্য তাঁকে এই শাস্তি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ICC

১৮টি গ্র্যান্ডস্লাম টাইটেল চ্যাম্পিয়ন রাফায়েল নাদাল

১২ বার রোলাঁ গারো  চ্যাম্পিয়ন হলেন রাফায়েল নাদাল। ঢুকে পড়লেন ইতিহাসে। সঙ্গে ১৮টি গ্র্যান্ডস্লাম টাইটেল। রবিবার রাফার হাতে ৬-৩, ৫-৭, ৬-১, ৬-১-এ পরাস্ত হতে হল অস্ট্রিয়ার ডমিনিক থিয়েমকে। ৩৩ বছরের এই স্প্যানিশ তারকাই প্রথম যাঁর ঝুলিতে জমা হল ১২টি ফ্রেঞ্চ ওপেন। শুধু ফ্রেঞ্চ ওপেন নয় এর আগে কেউই একই স্লাম ট্রফি ১২বার জেতেননি। ২০১৮ ফ্রেঞ্চ ওপেন ফাইনালের অ্যাকশন রিপ্লে দেখল রোলাঁ গারো। রাফায়েলের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ ছিল থিয়েম। পুরো টুর্নামেন্টে ভাল খেলে ফাইনালে পৌঁছেছিলেন তিনি। সেমিফাইনালে হারিয়ে দিয়েছিল নোভাক জকোভিচকে। রাফায়েল নাদাল হারান ফেডেরারকে।

 বিশ্বকাপে ইতিহাস পাক স্পিনার ইমরানের

লন্ডন: আইসিসি বিশ্বকাপে ইতিহাস গড়লেন ইমরান তাহির৷ বিশ্বকাপের ইতিহাসে সব থেকে বেশি উইকেট সংগ্রহ করেন প্রোটিয়া লেগ-স্পিনার৷ লর্ডসে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৪১ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট দখল করার পথেই বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার সব থেকে সফল বোলারে পরিণত হন তাহির৷পাকিস্তান ম্যাচের পর ৪০ বছর বয়সি তাহিরের বিশ্বকাপ শিকারের সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৯টি৷ এই নিরিখে তিনি পিছনে ফেলে দেন প্রাক্তন প্রোটিয়া স্পিড স্টার অ্যালান ডোনাল্ডকে৷ বিশ্বকাপে ডোনাল্ডের উইকেট সংখ্যা ৩৮৷ এতদিন এটাই ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার কোনও বোলারের বিশ্বকাপে সব থেকে বেশি উইকেট৷ বলা বাহুল্য, ইতিমধ্যেই প্রাক্তন পেসারকে টপকে যাওয়া তাহির টুর্নামেন্টের বাকি ২টি ম্যাচে ব্যবধান আরও কিছুটা বাড়িয়ে নিতে পারেন৷ বিশ্বকাপে ৩১টি উইকেট নিয়ে আর এক প্রাক্তন পেসার শন পোলক রয়েছেন এই তালিকার তৃতীয় স্থানে৷